বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর মুখ অ্যাম্বার হার্ড, বলছে বিজ্ঞান!

নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত: রবিবার, ২৬ জুন, ২০২২
  • ৫৩ বার পাঠিত

বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির মাধ্যমে এমনটাই জানান লন্ডনভিত্তিক প্লাস্টিক সার্জন ড. জুলিয়ান ডি সিভা বিনোদন বিশ্বে বর্তমান সময়ে সবচেয়ে আলোচিত হলিউড তারকা জনি ডেপ ও অ্যাম্বার হার্ড।

“পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান” অভিনেতা জনি ডেপের বিরুদ্ধে পারিবারিক সহিংসতার মামলা করেন “অ্যাকুয়াম্যান” অভিনেত্রী অ্যাম্বার হার্ড। দীর্ঘ কয়েক বছর মামলাটি চলার পর গত ১ জুন জুরিবোর্ড ডেপের পক্ষে রায় দেয়। এতে খুশি ডেপের ভক্ত, অনুরাগীরা।

তবে এত কিছুর পর এটা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, অ্যাম্বার হার্ডের চেহারাই বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দর। তবে এটা আমরা বলছি না, বিষয়টা বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণিত।

লন্ডনভিত্তিক প্লাস্টিক সার্জন ড. জুলিয়ান ডি সিভার মতে, ২০১৬ সালে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির মাধ্যমে নির্ধারণ করা বিশ্বের সবচেয়ে নিখুঁত মুখের তালিকার শীর্ষে ছিলেন অ্যাম্বার।

ড. সিলভার মুখের ম্যাপিং কৌশল ১২টি মূল পয়েন্টে চোখ, নাক, ঠোঁট, চিবুক, চোয়াল এবং মুখের আকৃতি, ইত্যাদিসহ বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের মূল্যায়ন করেন।

এই সার্জন নিখুঁত অনুপাত নির্ধারণ করতে প্রাচীন গ্রীক গোল্ডেন রেশিও অব বিউটি, “ফাই” ব্যবহার করেন। এরপর বিশ্বের সবচেয়ে সুন্দরী নারীদের তালিকা তৈরি করেন।

ভিডিওটি দেখুন

ম্যাপিং প্রযুক্তি অনুসারে, হার্ডের মুখ বিউটি ফিয়ের গ্রিক গোল্ডেন রেশিওতে ৯১.৮৫% নির্ভুল পাওয়া গেছে। সেই একই বছরে, কিম কার্দাশিয়ানের সবচেয়ে নিখুঁত ভ্রু পাওয়া গেছে। স্কারলেট জোহানসনের সবচেয়ে সুন্দর চোখ ছিল। অন্যদিকে সুপারমডেল এমিলি রাতাজকোস্কির সবচেয়ে সুন্দর ঠোঁট ছিল।

উল্লেখ্য, হলিউড তারকা জনি ডেপ ও অ্যাম্বার হার্ড ২০১৫ সালে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হলেও ২০১৬ সালে জনি ডেপের বিরুদ্ধে শারীরিক ও যৌন হেনস্তার অভিযোগ এনে আদালতে ডিভোর্সের আবেদন করেন অ্যাম্বার হার্ড। স্ত্রীর সেই অভিযোগ অস্বীকার করলেও ৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করে বিচ্ছেদের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেন জনি ডেপ। সেই সময়ে আদালতের কাছে দুইজন প্রতিজ্ঞা করেছিলেন যে, ভবিষ্যতে তাদের দাম্পত্য জীবন নিয়ে জনসম্মুখে আর কোনো ধরনের আলোচনা করবেন না তারা।

কিন্তু ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন পোস্টের কাছে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রাক্তন স্বামী জনি ডেপের বিরুদ্ধে আবারও শারীরিক ও যৌন নির্যাতনের অভিযোগ করেন অ্যাম্বার। এ কারণেই পরবর্তীতে ব্যক্তিগত আইনজীবীর সহায়তায় মানহানির মামলা করেছিলেন জনি ডেপ। অ্যাম্বারের বিরুদ্ধে ৫০ মিলিয়ন ডলারের মানহানির মামলা করেন জনি ডেপ। ওই মামলার পর ১০০ মিলিয়ন ডলারের পাল্টা মামলা করেন অ্যাম্বার।

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
এই বিভাগের আরো খবর
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত বিরহীমন ডক কম ২০১৫-২০২২