যৌ’নপেশা আইনসম্মত: ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

নিউজ ডেস্ক
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২
  • ৩১ বার পাঠিত

যৌ’নকর্ম নিয়ে তাৎপর্যপূর্ণ নির্দেশিকা সুপ্রিম কোর্টের। আর পাঁচটা পেশার মানুষের মতো যৌ’নকর্মীদেরও সমমর্যাদা ও সমান অধিকার রয়েছে। এই বিষয়টি মনে করিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি স্বেচ্ছায় এই পেশায় আসা কর্মীদের কাজে অহরহ পুলিশি হস্তক্ষেপ এবং ফৌজদারি মামলা দায়েরের প্রবণতাতেও লাগাম পরিয়েছে ভারতের শীর্ষ আদালত।
বিচারপতি এল নাগেশ্বর রাওয়ের নেতৃত্বাধীন তিন বিচারপতির বেঞ্চ এই সংক্রান্ত ছ’টি নির্দেশিকা জারি করেছে। এর মধ্যে দিয়ে যৌ’নকর্মীদের অধিকার সুরক্ষিত থাকবে বলে মনে করছে সুপ্রিম কোর্ট।

বেঞ্চ বলেছে, ‘যৌ’নকর্মীরাও আইনের চোখে সমান সুরক্ষার অধিকারী। যখন এটা স্পষ্ট যে, যৌ’নকর্মী এক জন প্রাপ্তবয়স্ক এবং সম্মতি সাপেক্ষেই যৌ’নতা বিক্রি করছেন, তখন পুলিশকে অকারণ হস্তক্ষেপ থেকে বিরত থাকতে হবে। কোনো ফৌজদারি ব্যবস্থাও গ্রহণ করা যাবে না। সংবিধানের ২১ নম্বর অনুচ্ছেদ এই দেশের প্রত্যেক নাগরিকের মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাপনের অধিকার সুনিশ্চিত করেছে।’

ভিডিওটি দেখুন

আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, যৌ’নপল্লিতে পুলিশি অভিযানের সময় যৌ’নকর্মীদের গ্রেফতার, দণ্ডিত করা, হেনস্তা করা উচিত নয়। কারণ যৌ’নকর্ম বেআইনি নয়, শুধুমাত্র যৌ’নপল্লি চালানো বেআইনি।

মা যৌ’নপেশায় আছেন, শুধু সেই যুক্তিতে সন্তানকে তার মায়ের কাছ থেকে সরিয়ে নেয়া যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে শীর্ষ আদালত।

পাশাপাশি কোনো যৌ’নকর্মী যদি তার বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের অভিযোগ নিয়ে পুলিশের কাছে যান, তাহলে সেটিও সমান মনোযোগের সঙ্গে দেখবেন পুলিশকর্মী। বিশেষত, যদি যৌ’নকর্মী তার বিরুদ্ধে যৌ’ন হেনস্তা বা অপরাধের অভিযোগ নিয়ে আসেন, তাহলে দ্রুততার সঙ্গে তার শারীরিক পরীক্ষা করে তদন্ত শুরু করতে হবে। এক্ষেত্রে, এক জন সাধারণ মানুষ যেমন সুবিধার অধিকারী, এক জন যৌ’নকর্মীর ক্ষেত্রেও তার অন্যথা করা যাবে না।

কোনো ঘটনা ঘটলে যৌ’নকর্মীদের পরিচয় যেন প্রকাশ্যে না আসে, সে ব্যাপারেও স্পষ্ট নির্দেশিকা দিয়েছে আদালত।

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
এই বিভাগের আরো খবর
[X]


সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত বিরহীমন ডক কম ২০১৫-২০২২