আজ আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’

Loading...

পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপটি আরও উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘনীভূত হয়ে একই এলাকায় ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’ এ পরিণত হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ আঘাত হানতে পারে শনিবার রাতে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশে- ওড়িশা উপকূলে। বাংলাদেশে আঘাত না হানলেও বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিশেষ বুলেটিন থেকে জানা গেছে, সাগর উত্তাল থাকায় সাগরের ২ নং সর্তক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। সেই সাথে সাগরে থাকা মাছ ধরারা নৌকা ও ট্রলার নিরাপদে চলাচলের জন্য বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সূত্রে আরো জানায়, ঘূর্ণিঝড়টি গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১১০৫ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১০৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৯৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৯৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

ভিডিওটি দেখুন

এদিকে আবহাওয়া অফিসের এক কর্মকর্তা জানানা, বর্তমানে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ ভারতের ওড়িশা উপকূলে আগাত হানতে পারে। তবে এর প্রভার আমাদের দেশে তেমন একটা পরবে না। এখন যে অবস্থা আছে তাতে বাংলাদেশের চিন্তার কোনো কারণ নাই। এটির প্রভাবে খুলনা অঞ্চলে কিছুটা বৃষ্টি হতে পারে। কিন্তু আবহাওয়ার গতি-প্রকৃতি সম্পর্কে নিশ্চিত মন্তব্য করা কঠিন। তাই আমরা সতর্কভাবেই পর্যবেক্ষণ করছি।

অপরদিকে ভারতে আবহাওয়া বিভাগ (আএমডি)ওড়িশার গজপতি, গঞ্জাম, পুরী এবং জগিসংহপুর জেলায় লাল সতর্কতা জারি করেছে (ভারী থেকে খুব ভারী বৃষ্টিপাত)। যখন ঘূর্ণিঝড় উপকূলের কাছাকাছি পৌঁছবে, সেই সময়ের জন্য কেন্দ্রপাড়া, কটক, খুরদা, নয়াগড়, কান্ধমাল, রায়গড় এবং কোরাপুট জেলায় কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানার সময় উপকূলবর্তী এলাকায় বাতাসের গতিবেগ ৯০ থেকে ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত থাকতে পারে।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে বৃহস্পতিবার ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জরুরি বৈঠক করেন। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থার সাইক্লোন সংক্রান্ত আঞ্চলিক সংস্থা এসকাপের তালিকা অনুযায়ী এ ঝড়ের নাম দেওয়া হয়েছে জাওয়াদ। সৌদি আরব এই নাম প্রস্তাব করে।

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন