মোদির সমালোচনা করায় হিন্দু হয়ে গেলেন মুসলিম!!

Loading...

উইকিপিডিয়ায় প্রকাশিত তথ্যে বেনামে সংশোধন করে ভারতের তারকা কমেডিয়ান বীর দাসকে করে দেয়া হল ‘বীর আবদুল্লা দাস’। সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক মাধ্যমে সমন্বিত প্রচার, এই কমেডিয়ান আসলে পাকিস্তানি। ভারতের ভাবমূর্তি নষ্ট করাই তার লক্ষ্য। অথচ এই সংশোধিত তথ্য পুরোটাই ভুয়া। মোদির সমালোচনা করায় তাকে হেনস্থা করাই উদ্দেশ্য।

এক দিকে মোদি সরকারের সাফল্য ও উন্নয়নের প্রচারে ব্যস্ত ভক্তকূল, অন্য দিকে কর্মচ্যূত শ্রমিক, ফসলের দাম না-পাওয়া কৃষক, রেকর্ড বেকারত্বে হতাশ যুব সমাজ। দিনের আলোয় মেয়েদের মাতৃরূপে পুজো করা, আবার রাতের অন্ধকারে গণধর্ষণ— মঞ্চে কমেডির মোড়কে ‘দুই ভারত’-এর গল্প শুনিয়েছেন কমেডিয়ান বীর দাস। সেই অনুষ্ঠানের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে গেরুয়া শিবিরের নিন্দা কুড়িয়েছে। বিজেপি সমর্থক অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওয়ত তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন।

ভিডিওটি দেখুন

বীরের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ থেকে আদালতে মামলা, সবই করেছেন গেরুয়াবাদীরা। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও যে এ ভাবে তার উপরে হামলা করা হবে, ভাবেননি কেউ।

পরিচিত কমেডিয়ান ও অভিনেতা বীর দাসের জন্ম দেহরাদূনে ১৯৭৯-তে। বাবা রানু দাস একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করতেন। মা মধুর দাস নাইজেরিয়ার লাগোসের একটি স্কুলের শিক্ষিকা। অথচ উইকিপিডিয়ায় তাকে পাকিস্তানি বলে তুলে ধরা হল। সেই তথ্যের স্ক্রিনশট তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেয়া হল। তবে আরও যে সব অশালীন মন্তব্য বীরের নামে উইকিপিডিয়ায় দেয়া হল, তাতে তথ্য সংশোধনের উদ্দেশ্যটা পরিষ্কার হয়ে যায়।

উইকিলিকের নোট থেকেই দেখা যায়, বুধবার দুপুরে ‘মিউসিকবোট ২’ নাম দিয়ে কেউ আগে প্রকাশিত তথ্যে সংশোধন করেছে। সেই সঙ্গে বেশ কিছু অশালীন তথ্যও বীরের নামে সংযুক্ত করেছে। পরে অবশ্য তা আবার ঠিক করা হয়। অভিযোগ, এই হেনস্থা গেরুয়াবাদী আইটি সেলেরই কাজ। সূত্র: এবিপি।

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন