ভালোবাসার জন্য রাজপ্রাসাদ ছাড়লেন জাপানের রাজকন্যা

Loading...

জাপানের রাজকন্যা মাকো ভালোবাসার মানুষের জন্য রাজপ্রাসাদ ছাড়লেন। দীর্ঘদিনের সহপাঠী এবং বন্ধু কেই কোমুরো-র সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন তিনি। মঙ্গলবার সকালে রাজপরিবার ত্যাগ করে সাধারণ পরিবারের ছেলে কুমুরোকে বিয়ের কারণে রাজকুমারীর মর্যাদা বিসর্জন দিতে হয়েছে মাকোকে। এসময় তাকে হালকা সবুজ রঙের পোশাকে দেখা গেছে। হাতে ছিল ফুলের তোড়া। মাকোকে বিদায় জানান বাবা-মা ক্রাউন প্রিন্স আকিশিনো ও ক্রাউন প্রিন্সেস কিকো, বোন প্রিন্সেস কাকো। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সকাল ১০টায় বিয়ে নিবন্ধনের জন্য টোকিওর বাসভবন ছাড়েন। বাড়ি ছাড়ার আগে মা–বাবাকে সম্মান প্রদর্শন করেন। জড়িয়ে ধরেন প্রিয় ছোট বোনকে। তারপর গাড়ি করে বিয়ে করতে যান নিজের দীর্ঘদিনের বন্ধুকে।

ভিডিওটি দেখুন

জাপানের আইন অনুযায়ী, রাজপরিবারের কোনও নারী সদস্য যদি বাইরের কোনো সাধারণ পুরুষকে বিয়ে করলে তার রাজকীয় মর্যাদা হারান। পুরুষ সদস্যদের ক্ষেত্রে অবশ্য এই নিয়ম নেই। প্রিন্সেস মাকো রাজকীয় মর্যাদা হারানোর পাশাপাশি রাজপরিবারের সদস্যদের বিয়ের ক্ষেত্রে যেসব আনুষ্ঠানিকতা পালন করা হয়, সেগুলোও পরিহার করেছেন। রাজকন্যা চলে গেলে তাকে অর্থ সাহায্য করা হয়। যা দিয়ে তার পরবর্তী জীবন কাটবে। মাকো ১৩ লাখ ডলারের সেই অর্থ নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন তিনি। অর্থাৎ, রাজকীয় তহবিলও প্রত্যাখ্যান করেছেন তিনি।

মাকোর স্বামী একজন মার্কিন আইনজীবী। বিয়ের পর স্বামীকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রেই স্থায়ী হবেন তিনি। জাপানের সংবাদমাধ্যমে বেশ কিছুদিন ধরেই মাকো এবং কোমুরোকে নিয়ে আলোচনা চলছে। বিয়ের জন্যই যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরেন কোমুরো। জাপানি মিডিয়ার একাংশ এই নবদম্পতিকে প্রিন্স হ্যারি এবং মেগান ম্যার্কেলের সঙ্গে তুলনা করতে শুরু করেছে। জাপানের হ্যারি-মেগান বলা হচ্ছে তাদের। সূত্র: ডিডাব্লিউ।

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন