মা ও দুই মে’য়ের সঙ্গে দিনের পর দিন অ’নৈ’তিক সম্প’র্কে প্রা’ণ যায় গৃহশিক্ষকের!

Loading...

দুই মেয়ে মেহজাবিন ইসলাম মুন ও জান্নাতুল ইসলাম মোহিনীকে নিয়ে সুখের সংসার কাটাচ্ছিলেন মাসুদ রানা ও মৌসুমী ইসলাম দম্পতি। নিজের আয়টা আরেকটু বাড়ালে বোধহয় সুখ আরো বাড়বে, এমন চিন্তাভাবনা থেকে বিদেশ

পাড়ি জমান মাসুদ। কিন্তু সেখানে গিয়ে আরেক বিয়ে করেন মাসুদ। বিদেশ গিয়ে প্রথম কয়েকমাস টাকা পাঠালেও দ্বিতীয় বি;য়ের পর বন্ধ করে দেন মাসুদ।

এতে স্কুল পড়ুয়া দুই মেয়েকে নিয়ে বিপদে পড়ে যান মৌসুমি। ওই সময়ে সুযোগে অনেকেই পুরুষশূণ্য পরি;বারটিতে কু;নজর দি;তে থাকেন। যখন পেটে ভাত জোটে না, তখনই কু;প্রস্তাবে রাজি হন মৌসুমি।

বিভিন্ন পু;রুষের স;ঙ্গে নিজ বাসা;তেই সময় কা;টানো শুরু ক;রেন মৌসুমি। ধী;রে ধী;রে মে;য়েরা ব;ড় হয়। তার ‘কাষ্টমা;রদের’ নজ;র প;ড়ে মে;য়েদের দি;কে। কাড়ি কা;ড়ি টা;কার লো;ভ দেখা;নো হয়। এক এক পর্যায়ে

নিজের বড় মেয়ে মেহজাবিন মুনকেও জোর পূর্বক দে;হ ব্যবসা;য় সম্পৃ;ক্ত করান। এরপর ছো;ট মেয়ে জান্না;তুল ইস;লাম মোহি;নীকে দি;য়ে অ;নৈ;তি;ক কাজ করান।

বড় মেয়ে মেহজাবিন মুনের; বি;য়ের আ;গে; আমিনুল ইসলাম নামের এক যুবক মুনকে প্রাইভেট পড়াতেন। ওই সময় ছাত্রীর সঙ্গেও তার শা;রী;রি;ক স;ম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরে ওই গৃহশিক্ষ;ক সুযোগ পেয়ে ছাত্রীর মা মৌসুমীর

সঙ্গেও অ;নৈতি;ক সম্পর্কে জ;ড়িয়ে; পড়েন। দু’জনে;র সঙ্গে অ;ন্ত;র;ঙ্গ সম্প;র্কের ভিডিও করে রেখে;ছিলেন আমি;নুল। সে;টি হয়ে ওঠে তার হাতি;য়ার। ভিডিও প্র;কাশের ভয় দেখি;য়ে তিনি মা-মে;য়েকে জি;ম্মি করে

অ;তি;ক সম্প;র্ক চা;লিয়ে যাচ্ছিলেন।; এমনকি তিনি মুনে;র ছো;ট বোন জান্না;তুল ইসলাম মোহিনী ও তার এক আ;ত্মীয়ের সঙ্গেও শারী;রিক স;ম্পর্ক স্থা;পন করে ফে;লেন।

ভিডিওটি দেখুন

পরিবারে গৃহশিক্ষক আমিনুলের সঙ্গে মা ও দুই মেয়ের বহু;মু;খী জটিল;তাপূর্ণ; সম্প;র্কের এক;পর্যায়ে মে;হজাবিন মুন;কে শফি;কুল নামের এক জ;নের সঙ্গে ;য়ে দেন মা মৌসু;মী। এ;তে ক্ষি;প্ত হন অ;বাধ গৃহশি;ক্ষক আমিনুল।; তিনি ছাত্রী মেহজাবিনের সঙ্গে অন্ত;রঙ্গ মু;হূর্তের ভিডি;ও তার স্বা;মীকে দেখা;ন। এ;তে মুনে;র সংসা;রে দাম্প;ত্য ক;লহ শুরু হয়। পরিস্থিতিতে; মা মৌ;সুমীও তখন আ;মিনুলের ওপ;র বির;ক্ত হতে থাকেন।

ছাত্রী মেহজাবিন মুন, ছাত্রী;র মা মৌ;সুমী ই;সলাম এবং ছাত্রীর ছো;ট বোন জান্না;তুল ইসলাম ;মোহিনীর; সঙ্গে আমিনু;লের অনৈ;তি;ক; মেলামে;শা এবং মো;বাইলে ধারণ ক;রা গোপন; ভিডি;ও ধ্বং;স কর;তে ছা;ত্রীর নতুন বিয়ে করা স্বামী শফিকুল, ছাত্রীর মা মৌসু;মী এবং ছাত্রীর খা;লা শিউলী; আক্তা;র প;রিকল্পনা ক;রে গৃহ;শিক্ষক আমিনু;লকে ;বাসায় ডে;কে নিয়ে গত ৫ বছর আ;গে হ;;;ত্যা করেন।

ওই ঘটনায় মেহজাবিন মুনকে আসামি করা হলেও পরে তার সম্পৃক্ততার প্রমা;ণ পায়নি ঢাকা দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ। যে কারণে শফিকুল, মৌসুমী এবং শিউলীর বিরু;দ্ধে আদালতে অভিযো;গপত্র দাখিল করে;ন ;তদন্ত;কারী কর্মকর্তা। যে মামলা তারা ৩ জন কা;রাদণ্ডপ্রা;প্ত হয়ে জে;ল খে;টে জামিনে ;বে;রিয়ে আসেন।

উল্লেখ্য, গত শনিবার সকালে কদমতলীর মুরাদপুর রজ্জব আলী সরদার রোডের পাঁচ;তলা বাড়ির দ্বিতীয়ত;লা থেকে মাসুদ রানা (৫০), তার স্ত্রী মৌসুমী ইসলাম (৪০) ও মেয়ে জা;তুল ইসলাম মোহিনীর (২০) লা;শ উ;র করে পুলিশ। অচে;তন অব;স্থায় মেহজামি;নের স্বামী; শফিকুল; ইসলাম ও মে;য়ে তৃপ্তি;কে উদ্ধা;র করে; চিকি;ৎসার জন্য হাসপা;তালে পাঠা;নো হয়। ।

এ ঘটনায় মেহজা;বিন ও ;তার স্বামী; শফিকুলের; বিরুদ্ধে; কদম;তলী থানায় ;মাম;লা হয়েছে। ;রো;ববার মেহজাবি;নের চার দি;নের রিমান্ড; মঞ্জুর ক;রেছেন আদালত।

রিমান্ডে এ কাণ্ডের দায় একাই নিজের কাঁ;ধে নিয়েছেন মেহজাবিন ইসলাম মুন। ঘটনায় ত;দন্তে নেমেছেন আইন;শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা।

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন