ভালোবাসার অ’তু’ষ্টি রয়েই গেল, সবাইকে কাঁ’দিয়ে চলে গেলেন কবরে

Loading...

বরাবরের মতোই বাড়ি ফিরে;ছেন ঢাকা বিশ্ববি;দ্যালয়ের শি;ক্ষার্থী ইস;রাত জা;হান তুষ্টি। সব সময়ই তার খোঁ;জখব;র নিতে বাড়িতে আস;তেন লোকজন। তবে এবার পুরোপুরি ভিন্ন। তুষ্টি বাড়ি ফিরেছেন ঠিকই, কিন্তু লা;শ হ;য়ে। তাই তাকে

শেষ;বারের মতো এক নজর দেখ;তে ভি;ড় জ;মান শত শত; নারী-পু;রুষ।সোমবার সকাল ৯টার দিকে নেত্র;কোনার আ;টপাড়া উপ;জেলার নীল;কণ্ঠপু;র গ্রামের ঈদগাহে তুষ্টির জানাজা হয়। এরপর দাদা আফর উদ্দিনের কবরের পাশে তাকে দা;ফ;ন করা হয়।

এ সময় তুষ্টির বাবা-মাসহ সহপাঠী-স্বজনদের আহা;জারিতে ভারী হয়ে ওঠে নীলকণ্ঠপু;র গ্রামের ;বাতাস। মে;ধাবী এ শিক্ষার্থীকে যে এভাবে দাফন করতে হবে তা অনেকে কল্পনাও করতে পারেননি।

দাফনের সময় বাড়ির আঙিনায় কবরের পাশে বারবার মূর্ছা যাচ্ছিলেন তুষ্টির বাবা আলতাফ উদ্দিন, মা হেনা আক্তার, চাচা মোফাজ্জল হোসেন ও বন্ধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের রাজু।

বি;লা;প করে তুষ্টি;র মা বলছি;লেন, ‘তুষ্টি, মা তুই কই গেলি;রে। তোরে দেখার জন্য কত লোকজন আইছেরে মা। আমার সব স্বপ্ন শেষ কইরা তুই কই গেলিরে’।

তুষ্টির চাচা মোফাজ্জল হোসেন বলছিলেন, ‘আর আমার ঢাকা যাওনের কোবো দরকার নাই। যার লাইগ্গে ঢাকা যাইতাম সেই তুষ্টি মা-ই নাই। ঢাকা গিয়া আর কি করবাম’।

ভিডিওটি দেখুন

তুষ্টির আরেক চাচা প্রভাষক ইমাম হোসেন। তিনি ছোটবেলা থেকেই তুষ্টির পড়াশোনার দেখাশোনা করেছেন। তুষ্টিকে দাফনের সময় তিনি শো;কে নির্বা;ক হয়ে চারপাশে পায়চারি করছিলেন। আর; নির্বাক হয়ে অপ;লক দৃষ্টিতে মে;য়ের দাফন দেখছিলেন তুষ্টির বাবা বৃদ্ধ আলতাফ উদ্দিন।

দাফনের চিত্র দেখে তুষ্টির বন্ধু রাজুও অজ্ঞান হয়ে মাটিতে পড়ে যাচ্ছিলেন। এ সময় তাকে সান্ত্বনা দেয়ার চেষ্টা করেন অন্য বন্ধুরা।

রাজু বলেন, তুষ্টি ছিল আমার বেস্ট ফ্রেন্ড। সে আমার সঙ্গে সবকিছুই শেয়ার করতো। কিন্তু হঠাৎ এভাবে সে আমাদের ছেড়ে চলে যাবে- তা কিছুতেই মেনে নিতে পারছি না।

প্রতিবেশী এক নারী বলেন, তুষ্টি ছো;টবেলা থেকে মে;ধাবী ছিলেন। তাই সবাই তাকে ভালো;বাস;তেন। অ;থচ ভালোবাসার অতুষ্টি রেখে সবাইকে কাঁ;দি;য়ে তিনি ক;ব;রে চ;লে গে;লে;ন।

রোববার সকালে রাজধানীর আ;জিমপুর সর;কারি স্টাফ কো;য়ার্টারের এ;কটি ভ;বনের টয়;লেট থেকে তুষ্টি;র মর;দে;হ উদ্ধার করে;ছে ফা;য়ার সা;র্ভি;স।

তুষ্টি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভা;গের দ্বি;তীয় বর্ষে;র ছা;ত্রী ছিলেন। করো;নার ;কা;রণে হল বন্ধ থাকায় তিনি আজিমপুর সরকারি স্টাফ কোয়া;র্টারে সা;বলেটে থাকতেন।

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন