ভারত থেকে বিশ্বকাপ সরিয়ে নিচ্ছে আইসিসি, যোগ হলো নতুন ভেন্যু!

Loading...

ভারত থেকে বিশ্বকাপ ক্রিকেটকে সরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে আভ্যন্তরীনভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা আইসিসি। প্রাথমিকভাবে আরব আমিরাত এবং ওমানকেই বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য বিকল্প ভেন্যু হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে।

১ জুন আইসিসির কার্যনির্বাহী সভায় জানানো হয়েছিল, ২৮ জুন পর্যন্ত ভারতকে বিশ্বকাপ সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়ার বিষয়ে সময় দেয়া হলো। কিন্তু সে পর্যন্ত যাওয়া হয়তো আর প্রয়োজন হচ্ছে না। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডই ভেতরে ভেরতে আইসিসিকে জানিয়ে দিয়েছে, বিশ্বকাপ আরব আমিরাত এবং ওমানে সরিয়ে নেয়ার বিষয়ে।

করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে অনুষ্ঠিত হতে পারেনি বিশ্বকাপ। সরিয়ে নেয়া হয় পরের

বছর। চলতি বছর অক্টোবর-নভেম্বরে ভারতের মাটিতে বসার কথা ছিল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আসর। কিন্তু করোনার মারাত্মক সংক্রমণ এবং ব্যাপকহারে মৃত্যুর কারণে ভারতে এই টুর্নামেন্ট আয়োজন অসম্ভব হয়ে পড়েছে। সুতরাং, বিকল্প ভেন্যুর চিন্তা করতেই হচ্ছে আইসিসিকে।

আরব আমিরাতে রয়েছে তিনটি আন্তর্জাতিক ভেন্যু। আবুধাবি, দুবাই এবং শারজাহ। আরব আমিরাতকে সব সময়ই বিকল্প ভেন্যু হিসেবে প্রস্তুত রাখা হচ্ছিল। এবার চতুর্থ ভেন্যু হিসেবে বিশ্বকাপের জন্য মাসকাটকেও সংযুক্ত করা হচ্ছে।

ভিডিওটি দেখুন

ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) এক সিনিয়র কর্মকর্তা পিটিআইকে বলেন, ‘হ্যাঁ, আইসিসি বোর্ড মিটিংয়ে বিসিসিআই চার সপ্তাহের সময় চেয়েছিল সিদ্ধান্ত নিতে। কিন্তু ভিতরে ভিতরে তারা আইসিসিকে বলে দিয়েছে, আয়োজকের মর্যাদা নিজেদের কাছে রেখে আরব আমিরাতে বিশ্বকাপ আয়োজন করতে চায়। আরব আমিরাতের সঙ্গে ওমানকেও ভেন্যু হিসেবে নেয়া যায়।’

হঠাৎ করে ওমান ভেন্যু হিসেবে আলোচনায় আসার কারণ কী? এর ব্যাখ্যাও দিয়েছেন সেই বিসিসিআই কর্মকর্তা। এর

কারণ মূলতঃ আইপিএল। আরব আমিরাতের মাটিতে সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবরে অনুষ্ঠিত হবে আইপিএলের বাকি অংশ। ১০ অক্টোবর শেষ হওয়ার কথা আইপিএল। এরপর বিশ্বকাপ আয়োজন করতে মাত্র দুই সপ্তাহ সময় পাবে আরব আমিরাতের তিনটি ভেন্যু।

ভেন্যুগুলো প্রস্তুত করার জন্য আরেকটু সময় বাড়িয়ে নিতেই মাসকাটকে বিবেচনায় আনা হয়েছে। ১৬ দলের প্রথম রাউন্ডটা যদি মাস্কাটে আয়োজন করা যায়, তাহলে আরব আমিরাতের ভেন্যুগুলো একটু রিলাক্স পাবে।

সেই কর্মকর্তা বলেন, ‘যদি আইপিএল ১০ অক্টোবরের মধ্যে শেষ হয় এবং এরপর বিশ্বকাপের আরব আমিরাত অংশ যদি নভেম্বরে শুরু করা যায়, তাহলে অন্তত তিন সপ্তাহ সময় পাবে ভেন্যুগুলো প্রস্তুত করার জন্য। এরই মধ্যে বিশ্বকাপের প্রথম সপ্তাহটা কাটিয়ে দেয়া যাবে মাসকাটে।’

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন