শারুনের ব্লু প্রিন্ট বাস্তবায়ন করেছে নুসরাত?

Loading...

ঢাকার গুলশানের একটি ফ্লাটে মোসারাত জাহান মুনিয়ার মৃ’ত্যু’রহস্য নাট’কীয় মোড় নিয়েছে। তার এই আ’ত্ম’হ’ত্যার ঘটনার পর যে অপ’মৃ’ত্যুর মা’ম’লা ও নাটক সাজানো হয়েছে, সেটির পেছনে চট্ট’গ্রামের সাবেক হুইপ

সাম’সুল হক চৌধুরীর পুত্র নাজমুল করিম শারুনের সংশ্লি’ষ্ট’তার তথ্য পাও”য়া যাচ্ছে। আইন প্রয়ো’গকারী সংস্থা শুরু’তেই বলেছিলো যে শারু’নকে তারা জি’জ্ঞাসা’বাদ করবে।

অনুস’ন্ধানে দেখা যাচ্ছে যে, মুনি’য়ার বড় বোন নুস’রাত জাহান তানিয়ার অতিউৎসাহ এবং সরাসরি বসুন্ধ’রার এম’ডির বি’রু’দ্ধে মা’ম’লা দা’য়ের ইত্যাদি সবই হয়েছে শারু’নের প্ররো’চনায় এবং নির্দে’শনায়।

আর এই ঘট’নার চাঞ্চ’ল্য’কর ত’থ্য উ’পাত্ত এখন সামনে চলে আসছে। মুনি’য়ার সঙ্গে শারু’নের দীর্ঘ’দিনের সম্পর্ক ছিলো এবং মুনি’য়া শারু”নকে ব্যবহার করতেন। এই ব্য’বহারের বিষয়টি মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত তানিয়াও জানতেন।

নুসরাত তানি’য়াকে দিয়েই শারুন তার পরি’কল্প’না বাস্তবা’য়ন করতে চেয়ে’ছিলেন। শারুন সা’ম্প্রতিক সময়ে বেশ চাপের মুখে ছিলেন। বিশেষ করে একজন ব্যাংক ক’র্মর্তার আ’ত্ম’হ’ত্যা নিয়ে সারা দে’শে যখন তোল’পাড় তখন ওই ব্যাংক কর্ম’কর্তার স্ত্রী সন্তান যখন ঢা’কায়

এসে বিচার দাবি করলেন তখন শারুনের অ’বস্থা অত্য’ন্ত বেগ’তিক। আর এ কারণে যেসব গণমাধ্যম এ ব্যাপারে সো’চ্চার তাদেরকে একহাত দেখে নেয়ার নীলনকশা করেন শারুন, এরকম চা’ঞ্চ’ল্যকর তথ্য পাওয়া যাচ্ছে অনুন্ধানে।

অনুসন্ধানে দেখা যাচ্ছে যে নুসরাত, শারুন, মুনি’য়ার ত্রিপক্ষীয় সম্পর্ক ছিলো। মুনিয়া যখন আ’ত্ম’হ’ত্যা করে তখন এই আ’ত্ম’হ’ত্যাকে কাজে লাগিয়ে তার প্রতিপক্ষকে, যারা তার ব্যা’পারে সত্য প্র’কাশ করেছে তাদেরকে ফাঁ’সিয়ে দেয়ার এক নীলন’কশা গ্রহণ করেন।

যদি নুসরা’তের স্বামীর কললিস্ট দেখা যায় তাহলে অনেক চাঞ্চ’ল্যকর তথ্য বেড়িয়ে আসবে। অনে’কে মনে করছেন যখন মুনিয়া আ’ত্ম’হ’ত্যা করলো তখনই নুসরা’তের সঙ্গে একা’ধি’বার যোগাযোগ করেন শারুন।

ভিডিওটি দেখুন

তখনই এই আ’ত্ম’হ’ত্যার জন্য বসুন্ধ’রার এমডিকে সরা’সরি অভি’যুক্ত করে মা’ম’লা দেয়ার পরা’মর্শ দেন। কারণ এতে এক ঢিলে অ’নেক’গুলো পাখি মা’রা যাবে বলে এই পরি’কল্পনা এটে’ছিলেন শারুন। এ কারণে আ’ত্ম’হ’ত্যা প্ররো’চনা মা’মলা’য় সরা’সরি একজ’নকে অভি’যুক্ত করে মা’ম’লা দিয়েছেন।

সাধা’ণত আ’ত্ম’হ’ত্যা প্ররো’চনা মা’ম’লায় কোনো ব্যক্তি’র নাম থাকে না, বলা হয় যে কেউ হয়’তো প্ররো’চনা দিয়েছেন। এ’ক্ষে’ত্রে এই ঘট’নার ব্য’ত্যয় ঘটে’ছে। নুস’রাত মুনিয়ার মৃ’ত্যু’র পর থানায় ‍গিয়ে সরা’সরি তার বি’রু’দ্ধে মা’ম’লা’ দিয়েছেন।

অনেকে প্রশ্ন করেছেন নুস’রাত যে থানায় গে’লেন তখন দামি গাড়ি এই গাড়িগুলো কার। বিভিন্ন মহল থেকে জানা গেছে এই গাড়ি’গুলো শা’রু’নই সরব’রাহ করেছিলো ।

একাধিক সূত্র বলছে, শা’রু’নের সঙ্গে মুনি’য়ার যে সম্পর্ক সেই সম্পর্কের ফা’য়দা নিতেন নুসরাত এবং নুসরাত নানা কারণে শা’রু’নের কাছে দায়বদ্ধ ছিলো। এ কারণে মুনি’য়াকে ব্যাপ’কভাবে চাপ দিয়ে’ছিলো শারুন। আর সে কারণে মুনি’য়ার মৃ’ত্যু হয় কি না বা আ’ত্মহ’ত্যা করে কি না সেটি নিয়ে তদন্ত চলছে।

এ নিয়ে মুনি’য়ার ভাই আশি’কুর রহমান সুবজ একটি মা’ম’লা করেছেন যে শারুনের লোক’জন মুনি’য়াকে হ’ত্যা করেছে। হ’ত্যা করুক বা আ’ত্ম’হ’ত্যা করুক সেটি ত’দন্ত সা”পেক্ষ বিষয়। কিন্তু নুসরাত ঢাকায় আাসর পর তার সঙ্গে শারুনের একাধিকবার কথোপেকথন হয় বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এ ব্যাপারে নুসরা’তের স্বামীর টেলি’ফোন লিস্ট খতিয়ে দেখলে অনেক গুরু’ত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাবে বলে সংশ্লি’ষ্টরা মনে করছেন। শারুন নিজের বি’রু’দ্ধে আ’ত্ম’হ’ত্যা প্ররোচনা মা’মলা আড়াল

করার জন্যই বসুন্ধরা গ্রুপের এম”ডিকে ফাঁ’সি’য়ে দেয়ার জন্যই নুসরাতকে ব্যবহার করেছেন। আর এর বিনি’ময়ে নুসরাত কি লাভবান হয়ে’ছেন সেটি নিয়েও তদন্ত করা দরকার বলে সংশ্লি’ষ্টরা মনে করছেন। সূএঃ পূর্বপশ্চিমবিডি

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন