অসুস্থ ছেলেকে ওষুধ খাওয়াতে আসার আগেই জুয়েলকে মে’রে ফে’লল জনতা!!

Loading...

অসুস্থ ছেলেকে ওষুধ খাওয়াতে আসার আগেই জুয়েলকে মেরে পুড়িয়ে ফেলল জনতাকোরআন শরীফ অ’ব’মাননার গু’জবে কান দিয়ে যে যু’বককে পি’টি’য়ে হ’ত্যা করে ম’রদেহ আ’গুনে পু’ড়ি’য়ে দেওয়া হয়ে’ছে, সেই শহিদুন্নবী

জুয়েল (৩৭) আ’সলে অ’ত্য’ন্ত ধা’র্মি’ক ও স’হ’জ-সর’ল ছিলেন। পাঁচ ওয়া’ক্ত’ নামা’জ আদায় এবং নিয়’মিত কো’রআন-হাদিস’ ‘পাঠ করতেন।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) রংপু’র নগ’রীর শাল’বনে তার বাসভ’বনে স’রেজ’মিনে গিয়ে প’রিবার ও এ’লাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে এ বি’ষয়ে জানা গেছে। লালম’নি’রহাটের পা’টগ্রাম ‘উপজে’লার বু’ড়িমা’রী বাজা’র কে’ন্দ্রীয় জামে ম’সজি’দে কো’রআন অ’বমাননার গু’জব থেকে জুয়ে’লকে হ’ত্যা’ করে ম’রদে’হ আ’গুনে পু’ড়ি’য়ে দেয় বি’ক্ষু’ব্ধ জ’নতা।

শহি’দুন্নবী জুয়েল রংপুর শহরের শা’লবন রোকে’য়া সরণি এলাকা’র আব্দুল ওয়াজেদ মিয়ার ছে’লে। তিনি রংপুর ক্যা’ন্ট’নমেন্ট পাব’লিক স্কুল অ্যান্ড কলে’জের সাবে’ক গ্র’ন্থাগা’রিক ছিলেন। তার বড় মে’য়ে জেবা তাসনিম এবার এইসএসসি পাস করেছে। ছে’লে তাশিকুল ইস’লাম ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী।

শুক্রবার সকালে শালবনে তার বাসভবনে গিয়ে দেখা যায়, খবর পেয়ে এলাকাবাসীসহ আত্মীয়-স্বজনরা ছুটে এসেছেন। প’রিবারের স্ব’জনদের কা’ন্না ও আ’হাজারিতে ভা’রী হয়ে আছে পরিবেশ।

স্বজন ও এ’লাকাবাসীর দা’বি, ক্যা’ন্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল থেকে চাকরি চলে যাওয়ায় তার এক’মাত্র উপার্জনপথ ব’ন্ধ হয়ে যায়। এরপর মা’নসি’কভাবে অনেকটা ভে’ঙে পড়েছিলেন। ডাক্তা’রের পরা’ম’র্শে ও’ষুধ খেতেন নি’য়মিত।

তার বা’ড়ি ঘু’রে দেখা যায়, প্রত্যেকটি ঘরে পবিত্র কোর’আন, হাদি’সসহ ইস’লা’মিক বিভিন্ন বই। ঘ’রের আলমা’রি ও দেয়া’লে ঝুল’ছে ইস’লামি’ক বি’ভিন্ন নিদর্শ’ন ও দো’য়ার ছবি। তার স্ত্রী’ হা’তে তসবিহ নিয়েই আ’হাজারি করছেন। স্ব’জনরা তাকে শান্ত’না দিচ্ছেন।

জুয়েলের স্ত্রী’ জেসমিন আক্তার মুক্তা আ’হাজারি করতে করতে বলেন, আমা’র স্বামী অনেক সহ’জ-সরল ছিল। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তো, কোরআন-হাদিস পড়তো। প্রত্যেক বছরই তিন-চারবার করে কোরআন খতম দিতো। ক’রোনা

ভিডিওটি দেখুন

ভাই’রাসের সময় কয়েকবার কোরআন খতম দিয়েছে। আগামী বছর আমাকে নিয়ে হ’জে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। আমি বিশ্বা’স করি না সে কোনোভাবেই কোরআন অ’বমাননা করতে পারে। যারা গু’জব ছড়িয়ে আমা’র স্বা’মীকে হ’ত্যা করেছে আ’মি তাদের বি’চার চাই।

তার বোন হাছনা আক্তার নিতি বলেন, ২০১৬ সালে ক্যা’ন্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজ রংপুরের গ্রন্থাগারিক পদে ষ’ড়যন্ত্র করে জুয়েলকে চাকরি থেকে অ’ব্যাহতি দিতে বা’ধ্য করা হয়। এতে প্র’চণ্ড রকমের মা’নসিক ধা’ক্কা পায়। নিজেকে গু’টিয়ে নিয়ে ধ’র্মের দিকে মনযোগ দেয়। সে নিয়মিত কোরআন-হাদিসসহ ই’সলামিক বই পড়তো। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাতের সঙ্গে আদায় করতো।

‘অনেক সময় আসরের নামাজ পড়ে ম’সজিদেই কোরআন-হাদিস পড়ে এরপর মাগরিবের নামাজ পড়ে বা’সায় ফিরতো। সে কো’নোভাবেই কোরআন অ’বমাননা করতে পারে না। যারা গু’জব ছ’ড়ি’য়ে তাকে হ’ত্যা’ করেছে তাদের শা’স্তি

চাই। আমি শুনেছি তার বন্ধু’সহ ও’ষুধ আনতে গিয়ে বুড়িমা’রীতে ম’সজি’দে আস’রের নামাজ পড়ে সেখানের ওয়া’লের তাকে রাখা কোরআন নিতে যায়। এ সময় অ’সাবধা’নতাব’শত কোর’আন ও হা’দিসের বই পায়ের কাছে পড়ে যায়। এটা নিয়ে গু’জব ছ’ড়িয়ে তাকে হ’ত্যা করা হয়েছে। ’

জুয়েলের বন্ধু রংপুরের সিনিয়র সাংবাদিক সাজ্জাদ হোসেন বাপ্পি বলেন, আম’রা প্রায় ৪০ বছর ধরে একই এলাকায় থাকি। ছোটবেলা থেকে তাকে চিনি। একসঙ্গে খেলাধুলাসহ নানা কাজ করতাম।

সে আমাকে সবসময় তার বি’ষয়গুলো জানাতো। নামাজের সময় হলে সে নামাজের জন্য ছুটে যেত। আশপাশের

লোকজনকেও নামাজের জন্য ডাকতো। ষ’ড়যন্ত্রে চাকরিটা চলে যাওয়ার পর সে অনেকটা ভে’ঙে পড়েছিল। ফলে নিজেকে গু’টিয়ে নিয়ে ধ’র্মের দিকে মনোনিবেশ করেছিল।

স্থা’নীয় এ’লাকাবাসী ও স্ব’জনরা এভাবে গু’জব ছড়িয়ে নৃ’শংসভাবে জুয়েলকে হ’ত্যার জন্য দা’য়ীদের শা’স্তি দা’বি করছেন। শুক্রবার বিকেলে হ’ত্যার প্র’তিবাদে এলাকাবাসী রংপুর প্রেসক্লাব চত্বরে মা’নববন্ধনের আয়োজন করেছেন।
সূত্রঃ বাংলানিউজ

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন