‘রিয়ার পরিবার আমাকে পাগলা গারদে পাঠিয়ে দেবে বাবা’ মৃ’ত্যুর আগে ফোনে সুশান্ত!

Loading...

“রিয়ার পরিবার আমাকে পাগলা গারদে পাঠিয়ে দেবে বাবা”, মৃত্যুর এক মাস আগে ঠিক এই কথাগুলোই নাকি সুশান্ত তাঁর বাবাকে বলেছিলেন ফোনে। মঙ্গলবার পাটনার রাজীব নগর থানায় দায়ের করা এইআইআর-এ এমন বি’স্ফো’রক দা’বিই করেছেন অভিনেতার বাবা কৃষ্ণকুমার সিং। শুধু তাই নয়, উ’ত্থা’পন করেছেন আরও বেশ কয়েকটি বিষয়ের।

যা ত’দ’ন্তের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে। এএনআই-এর খবর অ’নুযায়ী, ইতিমধ্যেই প্রাথমিকস্ত’রে তদ’ন্ত প্রক্রি’য়া শুরু হয়ে গিয়েছে। কৃষ্ণকুমার সিং যাঁদের নাম উল্লেখ করেছেন এফআইআর-এ প্রত্যেকের উপরেই ন’জর রাখছে পুলিশ। জে’রাও করা হবে বলে জানিয়েছেন পাটনার পুলিশ আধিকারিক বিনয় তিওয়ারি।

রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে একাধিক অভি’যোগ তু’লেছেন সুশান্তের বাবা। মার্চ মাসেই কেন সুশান্ত সিং রাজপুতের বিশ্ব’স্ত এক দেহর’ক্ষীকে স’রিয়ে দিয়েছিলেন বান্ধবী রিয়া? যদি সত্যিই মা’নসি’ক সমস্যায় ভু’গে থাকে ছেলে, তাহলে কেন চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ নেওয়ার আগে পরিবারকে জানাতে দেননি তিনি?

কেনই বা আত্মীয়-স্বজন, ঘনি’ষ্ঠ বন্ধুবান্ধবদের থেকে সুশান্তকে স’রিয়ে রাখতেন? এমন একাধিক প্রশ্নের উ’ত্থা’পন করেছেন কৃষ্ণ কুমার সিং তাঁর দা’য়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে। শুধু তাই নয়, খুব ক’ড়া ডো’জের ওষুধ খা’ইয়ে দিয়ে একবার বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা সুশান্তের বন্ধুদের বলেছিলেন ‘ওর ডে’ঙ্গি হয়েছে’,, এমন অভিযোগও রয়েছে রিয়ার বিরু’দ্ধে।

উল্লেখ্য, রিয়া সুশান্ত সিং রাজপুতের তিনটি কোম্পানিরই অংশীদার ছিলেন। শুধু তাই নয়, এর মধ্যে একটি কোম্পানির অংশীদার রয়েছেন রিয়ার ভাইও। যদিও অভিনেত্রীর কোনও মূলধনই ছিল না এই তিনটি সং’স্থাতে। পু’রো টাকাই ঢে’লেছিলেন সুশান্ত! সেই প্রস’ঙ্গও টে’নেছেন এফআইআর-এ কে কে সিং। তাঁর কথায়, রিয়ার প্রথম থেকেই ন’জর ছিল তাঁর ছেলের অর্থ এবং সম্পত্তির দিকে। সুশান্তের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে শপিং আর বিদেশ ভ্রমণই নয় জো’র করে খু’লিয়েছিলেন তিনটি কোম্পানি।

সুশান্তের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে সম্প্র’তি একটি এমন অ্যাকাউন্টে ১৫ কোটি টাকা ট্রা’ন্সফা’র হয়েছে যে, যার সঙ্গে সুশান্তের কোনও লেনদেনই নেই! সুশান্তের ব্যাংক ডিটেইলস সবটাই জানতেন রিয়া। তিনি সুশান্তের টাকা আ’ত্মসা’ৎ করে, নয়ছয় করেছেন বলে অভিযোগ প্রয়া’ত অভিনেতার বাবার।

এখানেই শেষ নয়, সোমবার পাটনার রাজীব নগর থানায় রিয়ার বিরু’দ্ধে ৭ পাতার ওই অভিযোগনামায় এও উল্লেখ রয়েছে যে, সুশান্তকে জো’র করে মা’নসি’ক রো’গী প্রমাণিত করার চেষ্টা করছিল রিয়া ও তার পরিবার। জো’র করে মা’নসি’ক অ’বসা’দের ওষুধ খাওয়ানো হত তাঁকে। “এমনকী, সুশান্তের আগের বাড়িতে ভূ’ত-প্রে’ত রয়েছে, এসব বলে জো’র করে বান্দ্রার এই বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে শিফট করান রিয়া। যা প্রথমে সুশান্তের বাড়ির লোকও জানতেন না। এছাড়াও সুশান্তকে নিয়ে শহরতলীর এক রিসর্টেও কিছুদিন থাকেন রিয়া।

ভিডিওটি দেখুন

সুশান্ত অ’দ্ভূ’ত আচ’রণ করে কিংবা আ’জগু’বি কথা বলে, এসব বারবার বলে তাঁর মা’নসি’ক পরিস্থি’তি ন’ষ্ট করে দিয়েছিলেন রিয়া। সুশান্তের এক বিশ্ব’স্ত দে’হর’ক্ষীকে স’রিয়ে দেওয়ার পর সমস্যা করেন সুশান্তের কর্মচারীদের সঙ্গেও। পুরনো কাউকেই পছন্দ করতেন না রিয়া। বরং, সবটাই নিজের অ’ঙ্গুলিহে’লনে চা’লনা করতেন।

সুশান্ত কার সঙ্গে খাবে, উঠবে, বসবে, কথা বলবে যাবতীয় বিষয় নিজের ন’খদ’র্পণে রেখেছিলেন রিয়া। এমনকী সুশান্তের আ’ত্মহ’ত্যার এক সপ্তাহ আগে যখন রিয়া বাড়ি ছে’ড়ে চলে যান, তখন বহুমূল্য গয়না, টাকাপয়সা, ব্যাংকের ক্রেডিট কার্ড থেকে শুরু করে চিকিৎসার ফাইলগুলো অবধি নিজের সঙ্গে নিয়ে যান রিয়া। যাতে সুশান্তকে ব্ল্যা’কমে’ইল করতে পারেন ওই ফাইলগুলো দিয়ে..” এমনই অজ’স্র অভি’যোগ তু’লেছেন সুশান্তের বাবা।

সুশান্তকে চে’ন দিয়েও বেঁ’ধে রাখতেন রিয়া! বি’স্ফো’রক অভিযোগ অভিনেতার ঘনি’ষ্ঠজনদের। রাজীব নগর থানায় রিয়ার বিরু’দ্ধে ভারতীয় দ’ণ্ডবি’ধির ৩৪১, ৩৪২, ৩৮০, ৪০৬, ৫০৬ এবং ৩০৬ ধা’রায় দা’য়ের করা হয়েছে অভিযোগ। রিয়ার বিরু’দ্ধে কৃষ্ণকুমার সিংয়ের দা’য়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই পাটনা থেকে ৪জনের একটি টিম মুম্বইয়ের উদ্দেশে রওনা হয়েছে ঘ’টনার তদ’ন্তে। মুম্বই পুলিশের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগেই তাঁরা তদ’ন্ত করবে বলে জানা গিয়েছে। দিন যত যাচ্ছে ক্র’মশই জো’রালো হচ্ছে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃ’ত্যুর র’হ’স্য। রিয়ার ত’রফের আইনজীবীও গতকাল আলোচনা সে’রে এসেছেন অভিনেত্রীর পরিবারের সঙ্গে।

মঙ্গলবারই অভিনেতার বান্ধবী তথা অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তীর বিরু’দ্ধে এফআইআর দায়ের করেছেন সুশান্তের বাবা কৃষ্ণকুমার সিং। এযাবৎকাল অভিনেতার মৃ’ত্যু নিয়ে কোনওরকম মুখ খো’লেননি তাঁর পরিবার। বরং বিত’র্ক, এবং মৃ’ত্যুর কারণ নিয়ে জ’লঘো’লা হলেও চু’প থেকেছে সিং পরিবার। তবে সোমবার পাটনার রাজীব নগর থানায় রিয়ার বিরু’দ্ধে ৭ পাতার এক অভিযোগনামা দিয়ে এফআইআর দা’য়ের করেছেন প্রয়াত অভিনেতার বাবা। উল্লেখ্য, সুশান্তের মৃত্যুর পর পরিবারের ত’রফে প্রথমবার কোনও অভি’যোগ দায়ের করা হল।

এছাড়াও রিয়ার বিরু’দ্ধে একাধিক অভিযোগ তু’লেছেন সুশান্তের বাব। তাঁর কথায় রিয়ার প্রথম থেকেই ন’জর ছিল তাঁর ছেলের অর্থ এবং সম্পত্তির দিকে। সুশান্তের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে শপিং আর বিদেশ ভ্রমণই নয় জো’র করে খু’লিয়েছিলেন তিনটি কোম্পানি। আর সেই তিনটি কোম্পানির অংশীদার রিয়া এবং তাঁর ভাই সৌভিক চক্রবর্তী। সৌভিককেও ইতোমধ্যে জে’রা করেছে মুম্বই পুলিশ। এছাড়াও সুশান্তকে জো’র করে বান্দ্রার এই বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে শি’ফ’ট করান রিয়া। তা কিন্তু প্রথমে সুশান্তের বাড়ির লোকও জানতেন না।সংবাদ প্রতিদিন

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন