পুরুষের কাছে আসলে যা লুকোতে চায় নারীরা…!

Loading...

প্রেমে মরিয়া হয়ে সে আপনাকে হাজারোবার হাজারো কথা বলবে। কিন্তু ওই কথাতেই কী তাঁর মনের গহিনের সন্ধান পাবেন আপনি। নারীর মনে যে ভাব খেলা করে তা সব সময় তাঁর মুখে ফোটে না।

এটা শুধু এমন নয় যে, সব কথা বলতে সে ভ’য় পায়। বরং অনেক সময়ই তাঁর একান্ত জগত্টায় আপনাকে প্রবেশাধিকার দিতে চায় না সে।

পুরুষের কাছে যা লুকোতে চায় নারী

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি সাম্প্রতিক জরিপে বেশ কিছু নারীর কাছে প্রশ্ন করা হয়েছিল ‘ছেলেব’ন্ধুর কাছে কী লুকোতে চান আপনি?’ একা বা কোনো একটি স’স্পর্কে আব’দ্ধ ওই নারীরা

এ বিষয়ে প্রথমে মুখ খুলতেই চাচ্ছিলেন না। পরে নির্ভীক ও সাহসীভাবেই নিজেদের অব’স্থান তুলে ধ’রেন তাঁরা। ওই জরিপ থেকে উঠে আসা শী’র্ষ পাঁচটি বিষয় এখানে তুলে ধ’রা হল-

বড় নয়, ছোট্ট কথা
মনে হতে পারে যে প্রিয়তমা’র সবচেয়ে নিবিড় অভিজ্ঞতাগুলোও আপনি জে’নে গেছেন, হয়তো সেটাই সত্যি। দু’জনের জীবনের জন্যে গু’রুত্ব পূর্ণ সেসব কথা আপনার কাছে সে লুকোবে না। কিন্তু সে হয়তো খুবই অগু’রুত্ব পূর্ণ কিছু মজার অভিজ্ঞতা আপনার কাছে লুকিয়ে থাকতে পারে। এটা আর কিছুই নয়। সমাজে নারীর চরিত্রকে সব সময় যে কষ্টিপাথরে মাপা হয় তারই ফলাফল।

কেননা তাঁর মনে এ ভাবনা থাকতে পারে যে আপনিও এ থেকে তাঁকে বিচার করবেন। এছাড়া আরেকটি বিষয় ভেবেও মেয়ে-ব’ন্ধুটি এমন কিছু ছোট্ট কথা লুকিয়ে থাকতে পারে যে আপনি এতে অনি’রাপদ বোধ করবেন বা ঈর্ষান্বিত হয়ে যাবেন। এ প্রস’ঙ্গে জে’নে রাখা দরকার যে প্রশ্নটা বেশিরভাগ নারীকে খুবই বিব্রত করে তা হল, পুরুষদের চিরায়ত জিজ্ঞাসা- ‘আমি কি তাঁর চেয়ে ভালো?’

মেয়েলি আলাপ
সবকিছু পারলেও আপনি কখনোই মেয়েদের ঘরোয়া রাজ্যে ঢুকে পড়তে পারবেন না। যদি না মেয়ে-ব’ন্ধু আর তাঁর সখীদের আলাপের সময় লুকিয়ে ওদের ঘরে ঢুকে প’ড়েন বা আড়ি পাতেন।

মেয়েরা নিজেদের মধ্যে অন্তরঙ্গ আলাপ’চারিতায় যে ভাষায় কথা বলে ধ’রে নিন তা আপনার অজা’নাই রয়ে যাবে। আর অন্যতম যে কারণে এই নারী-রাজ্যে পুরুষের প্রবেশাধিকার থাকে না তা হল সখীর গো’পনীয়তা ফাঁ’স হয়ে যাওয়ার ভ’য়ে। এছাড়া তাঁরা মনেই করেন যে নারী-রাজ্যের এই দুয়ারটি পুরুষের জন্য তালা মেরে রাখাই ভালো।

ভিডিওটি দেখুন

সাজসজ্জার টুকিটাকি
আপনি মুগ্ধ হয়ে ভাবতে পারেন যে সারাদিন ধ’রে ও এতো পরিপাটি টিপটপ থাকে কী করে! এটা নি’শ্চিত যে তাঁর সাজসজ্জার টুকিটাকিগুলো আপনার জা’না নেই। উনি চান যে আপনি সব সময়ই এটা ভেবে বিস্মিত হন যে এই রূপের রহ’স্য কী!

কোথা থেকে কীভাবে এটা পারে সে! কিছু পুরুষেরা হয়তো এটা অনুমান ক’রতে পারে যে, এর পেছনে নানান বাহারি প্রসাধনীর হাত রয়েছে। কিন্তু এটাই তো ঠিক যে আপনি হয়তো কখনোই জানবেন না যে হাতব্যাগে বা মেকআপ বক্সে কোথায় কী লুকিয়ে আছে!

পুরোনো প্রেমের কথা
কথায় আছে ভালোবাসা ছাড়া নারী বাঁচে না। তাঁর সমগ্র অস্তিত্ব জুড়ে থাকে ভালোবাসা। তা সে স্বামী-সন্তান-সংসার বা তাঁর কাজ যাই হোক না কেন। নিজে’র স’ঙ্গে জড়িয়ে থাকে এমন সবকিছুকেই ভালোবাসার ব’ন্ধনে জড়িয়ে রাখে সে। পুরোনো প্রেমিকের বিষয়ে নিজে’র বর্তমান অবস্থার কথা আপনাকে তিনি বলতেই পারেন।

যেমন হয়তো আপনিও বলেছেন তাঁকে। কিন্তু এ বিষয়ে নারীরা সচে’তন। আগের কথা বলে আপনাকে আ’হত ক’রতে চাইবে না সে। ফলে যতটা সম্ভব বিষয়টি আড়ালেই রাখতে চায় তাঁরা। আর কেউ কেউ এমনও বলেছেন যে, পুরোনো প্রেমিক স’স্পর্কে এমন ধারণাই তাঁরা দিতে চান, যাতে আপনি নিশ্চিন্ত থাকবেন।

বাপের বাড়ির কথা
এমন হওয়াটাই কাম্য যে, যার যার আত্মীয়-স্বজন আর ব’ন্ধুবান্ধবের স’ঙ্গে স’স্পর্ক নিয়ে দুজনেই দুজনের বিষয়ে সচে’তন আপনারা। এ বিষয়ে বোঝাপড়া থাকাটাই ভালো। তবে ঐতিহাসিকভাবে আমাদের সমাজে বাপের বাড়ির লোকজন নারীদের কাছে বিশেষ গু’রুত্ব পূর্ণ।

বিয়ের পর বাপের বাড়ি ছে’ড়ে আসতে হয় বলে এ বিষয়ে তাঁর ব্যাকুলতা যাতে আপনাকে কোনোভাবেই বিব্রত না করে সে বিষয়ে সচে’তন থাকেন বেশিরভাগ নারীরা। নিজে’র মা-বাবা-বোন-ভাইয়ের জন্যে তাঁর প্রা’ণ কেমন ক’রতেই পারে। এ নিয়ে সহমর্মিতায় সে খুশি হবে, কিন্তু কখনোই এমন উত্সাহে আপনি প্রশ্রয় পাবেন না যা কিনা বাপের বাড়ির গো’পনীয়তা ভে’ঙে দিতে পারে।

নিচের ভিডিওটি মিস করেন নি তো?
লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন