ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ‘গরমে করোনার মৃত্যু হবে’; বিজ্ঞান কি বলছে??

Loading...

অনেকেই মনে করছেন, গরম পড়ার সঙ্গে সঙ্গে করোনা সং’ক্র’মণ কমে যাবে। সম্প্রতি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও সেই সুরেই বলেছেন, ”গরমে সাধারণত এই ধরনের ভাইরাসের মৃত্যু হয়।” বাস্তবে কিন্তু ছবিটা আলাদা।

গত ডিসেম্বরে শেষে চীনে শুরু হওয়া করোনা সং’ক্র’মণ মার্চে মাসেও (যখন কি না গরমকাল) হু হু করে ছড়াচ্ছে উত্তর গোলার্ধের দেশগুলিতে। বাড়ছে মৃত্যুর হা’র।

প্রশ্ন উঠছে, তা হলে সত্যিই কি তাপমাত্রা ওঠা-নামার সঙ্গে করোনা সং’ক্র’মণের যোগ রয়েছে? বিজ্ঞানীরা অবশ্য এখনও পর্যন্ত এমন প্রমাণ পাননি। তারা জানিয়েছেন, করোনা আক্রা’ন্তের ল’ক্ষণগুলি প্রাথমিক ভাবে ইন’ফ্লুয়েঞ্জা বা সাধারণ জ্ব’রজা’রির মতোই।

দু’টোই একই ভাবে সং’ক্রা’মক। মূলত শ্বা’সয’ন্ত্রে থা’বা বসায়। দুই ক্ষেত্রেই শ্বা’সক’ষ্ট হতে পারে। যা থেকে প্রা’ণঘা’তী নিউমো’নিয়ায় ভু’গতে পারেন রো’গী। কিন্তু করোনার ক্ষেত্রে রো’গীর অবস্থা অনেক বেশি স’ঙ্ক’টজনক হতে পারে। করোনায় সং’ক্র’মণের হা’রও অনেকটা বেশি।

এমনিতে শীতকালের তুলনায় গরমে ফ্লু বা ইনফ্লুয়েঞ্জার প্রকো’প বেশ খানিকটা কমে যায়। চিকিৎসকদের মতে, এর দুই কারণ। প্রথমত, ঋতু ব’দলের সঙ্গে সঙ্গে ভাইরাসের সক্রি’য়তা কমে-বাড়ে।

দ্বিতীয়ত, আমাদের রো’গ প্রতিরো’ধ ক্ষমতাও বদ’লাতে থাকে। সাধারণ ফ্লু জাতীয় ভাইরাসের কথাই ধ’রা যাক। শীতের ঠান্ডা-শুষ্ক আবহাওয়ায় এই ধরনের ভাইরাসের বাড়বাড়ন্ত বেশি।

তা ছাড়া শীতকালে সূর্যরশ্মি ভূ-পৃষ্ঠে তি’র্যক ভাবে পড়ায় অতিবে’গুনি রশ্মির পরিমাণও কম হয়। যা ভাইরাসের বংশবৃদ্ধিতে সহায়ক। অন্য দিকে, শীতকালে রাতের তুলনায় দিন ছোট।

ফলে ত্বকে ভিটামিন ডি সংশ্লেষ এবং মেলাটোনিনের পরিমাণ কমে যায়। যার ফলে আমাদের রো’গ প্রতিরো’ধ ক্ষ’মতা দুর্বল হয়ে যেতে পারে। এ ছাড়াও, শীতকালে অনুষ্ঠান, জমায়েতে ভিড় বেশি হওয়ায় সং’ক্র’মণের আশ’ঙ্কাও বেড়ে যায়।

কয়েক ধরনের করোনা ভাইরাস আছে যেগুলির প্রকো’প শীতে বাড়ে। কিন্তু কোভিড-১৯ সং’ক্র’মণের ক্ষেত্রে তাপমাত্রার বাড়া-কমা আদৌ কোনও প্রভা’ব ফেলে কি না তা এখনও নি’শ্চিত নয়। ২০০২-২০০৩ সালে সার্সের সময়ে উত্তর গোলার্ধে শীতকালে ছড়িয়ে পড়া ওই সং’ক্র’মণ সবচেয়ে বেশি বেড়ে গিয়েছিল মে মাসে।

ঠিক একই ভাবে মার্স সং’ক্র’মণ ছড়িয়েছিল গ্রীষ্মপ্রধান দেশগুলিতে। মার্স বা সার্সও, দুয়ের জন্যই দা’য়ী এক ধরনের করোনা ভাইরাস। ২০০৯-১০ সালে ই’নফ্লুয়ে’ঞ্জা অতিমা’রির ক্ষেত্রেও দেখা গিয়েছে, গরমেই সং’ক্র’মণ ছড়িয়েছে।

লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন