ভারত-অস্ট্রেলিয়াকে ছাড়িয়ে পাকিস্তানের বিশ্বরেকর্ড

ঘরের মাটিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে জয় পেয়ে সিরিজ জিতেছে পাকিস্তান। দীর্ঘ ১০ বছর পর পাকিস্তানের মাটিতে ক্রিকেট ফিরেছে। আর ফেরাটা বেশ ভালোভাবেই করেছে পাকিস্তান।

প্রথম ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হলেও বাকি দুই ম্যাচ জিতে নেয় পাকিস্তান। গতকাল সিরিজের শেষ ম্যাচে ৫ উইকেট জয় পায় পাকিস্তান। আর এই জয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েছে সরফরাজ আহমেদের দল।

ওয়ানডে ক্রিকেটে নির্দিষ্ট কোনো প্রতিপক্ষের বিপক্ষে সবচেয়ে বেশী জয়ের রেকর্ডটি ছিল যৌথভাবে অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও পাকিস্তানের। কিন্তু এবার সেই রেকর্ডটি নিজেদের করে নিয়েছে পাকিস্তান। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৫৫টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে ৯২টিতে জয় পেয়েছে তারা। আর এতেই বিশ্বরেকর্ড গড়েছে পাকিস্তান।

অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৩৭ ম্যাচ খেলে ৯১টিতে জয় পায় অস্ট্রেলিয়া ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৫৯ ম্যাচ খেলে ভারতের জয়ের সংখ্যাও ৯১। এবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৯২টি জয় নিয়ে অস্ট্রেলিয়া-ভারতকে ছাড়িয়ে বিশ্বরেকর্ড করেছে পাকিস্তান।

আপিল করেও ক্ষমা পেলেন না লিওনেল মেসি

আন্তর্জাতিক ফুটবলে লিওনেল মেসির তিন মাসের নিষেধাজ্ঞার বিপক্ষে আপিল করেছে আর্জেন্টিনা। কিন্তু আপিল করেও কোনো লাভ হলো না। আর্জেন্টিনার করা আপিল খারিজ করে দিয়েছে দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল সংস্থা।

আগস্টের শুরুতে আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে আগামী তিন মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয় আর্জেন্টাইন অধিনায়ক মেসিকে। এই সময়ে আর্জেন্টিনার জাতীয় দলের হয়ে কোনো ম্যাচ খেলতে পারবেন না এই বার্সা তারকা। কোপা আমেরিকার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল নিয়ন্ত্রক সংস্থা ( কনমেবলকে) দুর্নীতিগ্রস্ত বলে মন্তব্য করেন তিনি। এর পরই এই নিষেধাজ্ঞা আদেশ জারি করে কনমেবল।

তিন মাসের শাস্তির পাশাপাশি ৫০ হাজার মার্কিন ডলার জরিমানা করা হয়েছে মেসিকে। কোপা আমেরিকা খেলে মেসির প্রাপ্ত অর্থ থেকে এ অর্থ কেটে নেয় কনমেবল।

২ আগস্টের পর থেকে এই নিষেধাজ্ঞা শুরু হয়। আগামী মাসে হতে যাওয়া জার্মানি ও ইকুয়েডরের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ মেসির নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ এক মাস কমানোর জন্য আবেদন করেছিল আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এএফএ)। তবে তাদের সেই আবেদনে সাড়া দেয়নি কনমেবল। ফলে জাতীয় দলের হয়ে মাঠে ফিরতে ৩ নভেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে রেকর্ড ছয়বারের বর্ষসেরা ফুটবলারকে।

কোপা আমেরিকায় চিলির বিপক্ষে আর্জেন্টিনার তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচের পর মেসি বলেছিলেন, ‘ব্রাজিলের জন্য কাপটি নির্দিষ্ট ছিল।’ সে মন্তব্যের জবাবে কনমেবল জানায়, মেসির অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং এটি আয়োজকদের সম্মানে আঘাত করেছে। এর আগেও এক ম্যাচের জন্য মেসিকে নিষিদ্ধ ও অর্থ জরিমানা করে কনমেবল। সেটি ছিল চিলির বিপক্ষে লাল কার্ড দেখার কারণে।

বিসিবি কর্মকর্তাদের চোখেমুখে আতঙ্কের ছাপ…

বিসিবিতে গতকেয়দিন থেকে বেশ কয়েকটা ইস্যু নিয়ে আলোচনা চলতেছে।খেলার সাথে সংযুক্ত কিংবা বিসিবি কর্তাদের নিজস্বতায় এমন পরিস্থিতির স্বীকার দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) প্রাঙ্গন।

যেখানে বিপিএল, এনসিএল খেলা কিংবা জাতীয় দলের কোচদের নিয়োগ দেওয়া নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন বিসিবি কর্তারা। ক্রিকেটারদের উন্নতি, ফিটনেস কিংবা ধারাবাহিকতা যার একটা বিশেষ অংশ।

তবে সব কিছু ছাপিয়ে, বিসিবির ডাইরেক্টর, বিসিবি বসের আস্থাভাজন, মোহামেডান ক্লাবের ইনচার্জ লোকমান হোসেন এর ক্যাসিনো কান্ডে অবাক করা অপরাধ কিংবা বিসিবির উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের একজন, বিসিবির অন্যতম একজন ডাইরেক্টর জনাব মাহবুব আনাম কে দুদকের নোটিশ দেওয়া নিয়ে বেশ হইচইপূর্ণ অবস্থা বিসিবি প্রাঙ্গনে।

তাছাড়া বিসিবির আরে কর্মকর্তার কথা অনুযায়ী যেখানে প্রতি মাসের ২৫/২৬ তারিখের মধ্যে নিজেদের বেতন – বাতা পেয়ে থাকেন সেখানে নির্দিস্ট সময়ের একসপ্তাহ পার হয়ে গেলেও এমাসের বেতন পাননি কোন কর্মকর্তা। গণমাধ্যমে গুঞ্জন ক্যাসিনো মামলায় লোকমান হোসেন এর গ্রেফতারের পর থেকে বিসিবির ফ্যাইন্যান্স চেয়ারম্যান এর অনুপস্থিতি এমন পরিস্থিতির জন্মদেয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বলেন কারও একার জন্য কিছু থেমে থাকবেনা। যে কেউ নিজস্ব কারনে অনুপস্থিত থাকলে বাকী সবাই মিলে সমস্যার সমাধান করে নিবে।

ছয়ে থাকা বার্বডোজকে দুইয়ে নিয়ে এলেন সাকিব

বার্বাডোজের প্লে-অফের ভাগ্যটা হয়ত সাকিব আল হাসানের হাতেই লেখা ছিল। তাইতো বাংলাদেশ থেকে উড়ে গিয়ে ক্যারিবিয়ান দ্বীপ কুঞ্জে ব্যাটে-বলে বাজিমাত করে প্রায় একাই ছয়ে থাকা বার্বাডোজকে দুইয়ে নিয়ে গিয়ে লীগ পর্বের খেলা সমাপ্ত করলেন এই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

যখন সিপিএলে খেলতে গেলেন কখন ৭ ম্যাচে ৩ জয় নিয়ে ৬ পয়েন্টে গ্রুপ পর্বেই বাদ পড়ার শঙ্কায় পড়ে বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। প্লে-অফে যেতে হলে বাকি তিন ম্যাচের দুটিতে অবশ্যই জিততে হতো বার্বাডোজকে।

এমন সমীকারন নিয়ে নিজের প্রথম ম্যাচে খেলতে নেমে ব্যাটে বলে দুর্দান্ত পারফর্ম করেন সাকিব। বল হাতে নেন ৪ ওভারে ১৪ রানে ১ উইকেট। আর বল হাতে করেন ২৫ বলে ৩৮ রান। কিন্তু তার দল হেরে যায় ১ রানে। এতে যেন বাদ পড়ার শঙ্কা আরো বেড়ে যায়।

পরের ম্যাচে আবারো দারুণ বোলিং করলেন সাকিব। এদিন ৪ ওভারে ২০ রান নিয়ে নেন ১ উইকেট। ব্যাটে হাতে ২১ বলে ২২। দারুণ জয় তুলে নেয় তার দল। আর আজ গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে বল হাতে সাকিবের ৪ ওভারে ২৫ রানে ২ উইকেট। ব্যাট হাতে ১৪ বলে ১৩ রান করেন। এবারো ৭ উইকেটের দারুণ জয় তুলে নেয় বার্বাডোজ।

আর এই জয়ে ১০ ম্যাচে ৫ জয় নিয়ে ১০ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দুইয়ে চলে এসেছে সাকিবের বার্বাডোজ। তাদের উপরে আছে কোন ম্যাচে না হারা গায়ানা অ্যামাজন ওয়ারিয়র্স। তিনে আছে সেন্ট কিটস এন্ড নেভিস। চারে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স।

জয়ের ৯৯ রানে নিউজিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারালো বাংলাদেশ যুবারা

বাংলাদেশ এবং নিউজিল্যান্ড অনূর্ধ্ব ১৯ দলের মধ্যকার দ্বিতীয় ম্যাচেও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বড় জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। ম্যাচে নিউজিল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশের যুবারা।

ম্যাচে প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে ২৪২ রান করে তোলে নিউজিল্যান্ড। দলের পক্ষে থমাস জোহরাব সর্বোচ্চ ১১২ রান করেন। বাকিরা আর কেউই তার সাথে তাল মেলাতে পারেনি।

৫৫ রানের ওপেনিং জুটি গড়েছিল নিউজিল্যান্ড। মৃত্যুঞ্জয় দলীয় ৫৫ রানে প্রথম আঘাত হানেন কিউই শিবিরে। ৩০ রান করে আউট হন ওলে হোয়াইট।

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে থমাস জোহরাব ও কনর আনসেল মিলে ৪৭ রানের আরেকটি জুটি বাধেন। কনর ২০ রান করে রাকিবুলের বলে আউট হলে ভাঙে এই জুটি।

এরপর আর বড় কোন জুটি গড়তে পারেনি কিউইরা। বাংলাদেশের বোলারদের ধারাবাহিক উইকেট নেয়া এবং লাইন লেন্থে বোলিং করার কারণে রান তোলাতেও চাপে পড়ে নিউজিল্যান্ড। শেষ পর্যন্ত ২৪২ রানেই থামে তারা। একপ্রান্ত আগলে রেখে ১১২ রান করেন থমাস।

জবাবে ব্যাটিং করতে নেমে মাত্র ৬ রান করেই আউট হন বাংলাদেশের ওপেনার পারভেজ ইমন। কিন্তু দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে জয় ও তানজিদ হাসান মিলে ৯৫ রানের জুটি গড়েন। তানজিদ ৬৫ রান করে আউট হলে ভাঙে এই জুটি।

এরপর তৌহিদ হৃদয় জুটি বাধেন জয়ের সাথে। দুজনে মিলে ৭৭ রানের জুটি বাধেন। তৌহিদ হৃদয় ৪০ রান করে আউট হলে ভাঙে এই জুটি।

তবে সবচেয়ে বড় অঘটন ঘটে দলীয় ২৩৫ রানের মাথায়। ৯৯ রান করে আউট হয়ে যান মাহমুদুল হাসান জয়। এতে অবশ্য বাংলাদেশের জয় আটকায়নি। শামীমের ২০ ও শাহাদাতের ৪ রানে ভর করে ৪৬.৩ ওভারেই ম্যাচ জয় নিশ্চিত করে বাংলাদেশ।

লাইক দিয়ে আমাদের সাথে থাকুন